এ যেন অবাক ‘প্রেম’; স্ত্রী-র মৃতদেহের সঙ্গেই প্রায় দু’দশক সংসার করলেন স্বামী! – News18 Bangla

এ যেন অবাক ‘প্রেম’; স্ত্রী-র মৃতদেহের সঙ্গেই প্রায় দু’দশক সংসার করলেন স্বামী! – News18 Bangla
Advertisement
Advertisement

#ব্যাঙ্কক: স্ত্রী-র মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২১ বছর আগে। আর সেই দেহ আঁকড়েই দু’দশক ধরে ঘর করে গেলেন স্বামী। এ যেন এক চিরন্তন প্রেমের আখ্যান! এই খবর চাউর হতেই হইচই পড়ে গিয়েছে নেটমাধ্যমে (Viral News)।

থাইল্যান্ডের ব্যাঙ্ককের ব্যাং খেনের (Bang Khen) ঘটনা। যদিও সম্প্রতিই অশ্রুসজল চোখে স্ত্রী-কে শেষ বারের মতো বিদায় জানিয়েছেন বছর বাহাত্তরের চার্ন জানওয়াচাকাল (Charn Janwatchakal)। তাঁর বক্তব্য, স্ত্রী-র প্রতি গভীর প্রেমের জন্যই তিনি এমন কাণ্ড করেছেন। আসলে তাঁর কাছে এখনও তাঁর স্ত্রী জীবিত।

আরও পড়ুন-দেশি মদ খেয়েও চড়েনি নেশা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে সটান নালিশ ঠুকলেন মধ্যপ্রদেশের এক মদ্যপ!

ঘটনার সূত্রপাত ২০০১ সালে। সেই বছরই মৃত্যু হয়েছিল চার্নের স্ত্রী-র। ওই মহিলা জনস্বাস্থ্য মন্ত্রকে কর্মরত ছিলেন। তাঁর মৃত্যুর পর চার্ন তাঁর দেহ কফিনবন্দী করে ঘরের মধ্যেই রেখে দিয়েছিলেন। আর এভাবেই যেন স্ত্রী-কে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন ওই বৃদ্ধ। দিব্যি গল্প করতেন স্ত্রী-র মৃতদেহের সঙ্গে।
সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর, চার্নের এক তলা পাকা বাড়িটির জরাজীর্ণ দশা। বাইরে থেকে দেখলে গুদাম ঘর বলেই ঠাহর হয়। এমনকী, জল অথবা বিদ্যুতের কোনও সংযোগও ছিল না ওই ভগ্ন বাড়িতে। প্রতিবেশীদের দেওয়া জলের সাহায্যেই দিন গুজরান করতেন চার্ন।

আরও পড়ুন-১০০ বছর বেঁচে থাকেন অনেকেই, রহস্য এবার আপনার হাতের মুঠোয়, জানাচ্ছেন খোদ দীর্ঘায়ুরাই !

কয়েক মাস আগে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় জখম হয়েছিলেন ওই বৃদ্ধ। তখন থেকে একটি ফাউন্ডেশন চার্নকে জল এবং খাবার দিয়ে সাহায্য করছিল। কিন্তু দেখভালের সময় ওই ফাউন্ডেশনের সদস্যরা বাড়িতে এলেও কফিনটি তাঁদের নজরে আসেনি। এদিকে আবার অসুস্থ থাকাকালীন বৃদ্ধের মনে আশঙ্কা জাগে, যদি আচমকা তাঁর মৃত্যু ঘটে, তাহলে তো তাঁর স্ত্রী-র কী হবে। ঠিকঠাক মতো শেষকৃত্যটাও তো জুটবে না স্ত্রী-র ভাগ্যে। তাই যেমন ভাবা, তেমনি কাজ। সেরে ওঠার পরেই স্ত্রী-র শেষকৃত্য করার জন্য সাহায্য চেয়ে ওই ফাউন্ডেশনের দ্বারস্থ হন চার্ন। তাতেই ঘটনার কথা জানাজানি হয়। যদিও ঘটনা প্রকাশ্যে এলেও ওই বৃদ্ধের বিরুদ্ধে কোনও রকম কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। সাহায্যের হাতও বাড়িয়ে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট ফাউন্ডেশন। গত ৩০ এপ্রিল নিয়ম মেনে স্ত্রী-র মৃতদেহের সৎকার করেছেন তিনি।

সেই শেষকৃত্য অনুষ্ঠানের বিভিন্ন ছবি ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাতে দেখা গিয়েছে যে, নিজের বাড়ির বাইরে কফিন বহন করতে সাহায্য করছেন চার্ন। তাঁর চোখের জল যেন বাঁধ মানছে না। একটি ভিডিও-তে আবার দেখা গিয়েছে, মৃতা স্ত্রী-র কানে কানে তিনি বলছেন, “তুমি কয়েক দিনের জন্য যাচ্ছ, খুব শীঘ্রই তুমি আবার তোমার বাড়িতে ফিরে আসবে। কথা দিচ্ছি, তোমায় বেশি দিন অপেক্ষা করতে হবে না।”

এই ভাইরাল ছবি এবং ভিডিও দেখে চোখ ভিজেছে নেটিজেনদেরও। অনেকেই এই ঘটনাকে ‘চিরন্তন প্রেমের নিদর্শন’ বলে আখ্যাও দিচ্ছেন।

Published by:Siddhartha Sarkar

First published:

Tags: Thailand, Viral News

Source